ক্যারিয়ারে নেটওয়ার্কিং কেন জরুরি?

ক্যারিয়ারে নেটওয়ার্কিং কেন জরুরি?

শুধুমাত্র চাকরি খোঁজার সময় নেটওয়ার্কিং খুঁজে বের করার চেষ্টা করবেন এমনটি করা যে কোন ক্যারিয়ারের জন্যই অনুচিত। ক্যারিয়ার নেটওয়ার্কিং হওয়া উচিত প্রতিদিনের একটি অংশ। নেটওয়ার্কিং তৈরি করা অবশ্যই জরুরি। আপনি যে প্রতিষ্ঠানে, যে পদেই যুক্ত থাকুন না কেন বিভিন্ন পদের মানুষের সাথে যোগাযোগ রক্ষা করার চেষ্টা করুন। পরবর্তীতে আপনার আরও ভালো ক্যারিয়ারের জন্য এটি সহায়ক হবে। হয়ত আপনি ভাবছেন আজকে একটি প্রতিষ্ঠানে আপনি যুক্ত আছেন, নেটওয়ার্কিং না বাড়ালেও চলবে। এমন ভুল সিদ্ধান্তের কারণে ঝামেলা নাও এড়াতে পারেন আপনি। সম্পর্ক তৈরি করে রাখতে হয়, সেটি প্রয়োজনে আসতে পারে যে কোনো সময়, যে কোনো দিন।

ক্যারিয়ার নেটওয়ার্কিং বা প্রফেশনাল নেটওয়ার্কিং ব্যক্তিগত, প্রফেশনাল, একাডেমিক বা পারিবারিক যে কোনো ক্ষেত্রেই তৈরি হতে পারে। চাকরি খুঁজতে বা কোনো প্রতিষ্ঠানে যুক্ত হতে ‘নেটওয়ার্কিং’ শব্দটি শুনতে ভালো লাগলেও এটি তৈরি করা যেমন কঠিন তেমন রক্ষা করাও সহজ নয়। কলিগ, ম্যানেজার, সুপারভাইজার, যে কোনো কর্মী, পূর্বের বা বর্তমানের গ্রাহক, বিজনেসম্যান, পরিবারের মাধ্যমে পরিচিত হওয়া যে কোন ব্যক্তি, জিম, ইয়োগা অথবা যে কোনো কমিউনিটি থেকে পাওয়া কোনো ব্যক্তি, শিক্ষক অথবা প্রফেসর, ব্যবসায়ের খাতিরে পরিচয় হয়েছে এমন যে কোনো মানুষই আপনার নেটওয়ার্কিং এর তালিকায় থাকতে পারেন। জরুরি হচ্ছে প্রতিটি মানুষের সাথে তার নিজ নিজ কর্ম বিষয়ে নেটওয়ার্কিং রক্ষা করে চলা। সে যে চাকরি করছে আপনি হয়ত সেটি করছেন না বা করবেন না, তবু যোগাযোগ রক্ষা করুন। কারণ আপনার কাজের সাথে মিল আছে এমন কেউ যদি তার পরিচিত থাকে তবে সে কিন্তু আপনাকে আগে জানাবে।

কীভাবে ক্যারিয়ারে নেটওয়ার্কিং রক্ষা করবেন?
সঠিক মানুষের সাথে সম্পৃক্ততা
ক্যারিয়ারে ভালো করতে চাইলে একা কখনোই সেটি সম্ভব নয়। হ্যাঁ কর্মক্ষেত্রে পরিশ্রম অবশ্যই আপনি করবেন কিন্তু সবার সাথে একটি সম্পর্কও বজায় রাখা জরুরি। ক্যারিয়ার গঠনে এমন কিছু মানুষের সাথে সম্পৃক্ততা তৈরি করুন যারা বিভিন্ন চাকরি বা ব্যবসায় যুক্ত আছে। সে হতে পারে আপনার বর্তমান অথবা আগের কলিগ, বস, বন্ধু যে ঠিক আপনার মতোই ভাবে, ব্যবসায়িক অন্য কোনো প্রতিষ্ঠানের কলিগ বা বন্ধু, বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, অথবা এমন কেউ যার সাথে অনলাইনেও আপনার বেশ ভালো সম্পর্ক আছে। নেটওয়ার্কিং শুধু বাইরের মানুষের সাথেই হবে এমন নয়। পরিবারের যে কোন ব্যক্তি, প্রতিবেশি এমনকি আপনাকে সত্যিকারেই সাহায্য করতে চায় এমন যে কাউকেই নেটওয়ার্কিং প্রতিষ্ঠায় সাথে রাখতে পারেন
।নেটওয়ার্ক কীভাবে সাহায্য করে
নেটওয়ার্কিং এর মাধ্যমে যারাই কাজে যুক্ত হন তারা সবাই এর উপকারিতা সম্পর্কে জানেন। চাকরি বিষয়ে জানতে এটি সবচেয়ে সহায়ক। পরিচিত কেউ যখন কোন প্রতিষ্ঠানে থাকে তখন তার মাধ্যমে প্রতিষ্ঠানের ভিতরের তথ্য জানতে পারেন আপনি। এমনকি দেশের বিভিন্ন খাতে চাকরির অবস্থা, সুযোগ সবকিছু সম্পর্কে তিনি জানাতে পারেন। সিভি দিয়ে চাকরি খোঁজার চাইতে একটি সঠিক নেটওয়ার্কিং এর জোর অনেক বেশি!

যোগাযোগ রাখুন
শুধুমাত্র আপনার চাকরি দরকার আর তখনই কারো সাথে যোগাযোগ করছেন এমনটি যেন না হয়। নিয়মিত একটি যোগাযোগ বজায় রাখুন। আপনি কী করছেন, কেমন আছেন, কোথায় কাজের সাথে যুক্ত আছেন এগুলো অন্যজনকে জানার সুযোগ করে দিন। তবেই সে আপনার কথা মনে রাখবে। আমরা সবাই এখন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অনেক এক্টিভ। একজন মানুষকে একটা মেসেজ দিয়ে খোঁজ নেওয়া এমন কোনো কঠিন কাজ নয়। এমন যোগাযোগে সম্পর্ক ভালো থাকে। পরবর্তীতে আপনি কোনো কাজে হেল্প চাইলে বা কোনো বিষয়ে কথা বললে সেই মানুষকে সরাসরি বলতে দ্বিধা কাজ করবে না। আর এটাই নেটওয়ার্কিং এর অনেক বড় শক্তি।

সংবাদটি ফেসবুকে শেয়ার করুন