যে জীবাণুনাশক ব্যবহারে ৯০ দিন থাকা যাবে

যে জীবাণুনাশক ব্যবহারে ৯০ দিন থাকা যাবে করোনামুক্ত
নোভেল করোনাভাইরাসের (কোভিড-১৯) সংক্রমণ এডাতে বিশেষ ধরনের জীবাণুনাশকের (অ্যান্টিমাইক্রোবায়াল কোটিং) সন্ধান দিয়েছেন যুক্তরাষ্টের অ্যারিজোনা বিশ্ববিদ্যালয়ের একদল গবেষক। এই জীবাণুনাশক কোনো কিছুর ওপর একবার প্রয়োগ করা হলে ৯০ দিন পর্যন্ত করোনামুক্ত থাকবে।

মধ্যপ্রাচ্যের গলফ নিউজের প্রতিবেদন এই তথ্য জানানো হয়েছে। বিশেষ ওই জীবাণুনাশকের ব্যবহারে মাত্র ১০ মিনিটের মধ্যে ৯০ শতাংশ করোনাভাইরাস ধ্বংস হবে। আর দু’ঘণ্টার মধ্যে করোনার ৯৯.৯৯ ভাগ জীবাণু খুঁজে পাওয়া যাবে না।
অ্যারিজোনা বিশ্ববিদ্যালয়ের অণুজীব বিজ্ঞানী ও গবেষণাটির জ্যেষ্ঠ অধ্যাপক চার্লস গের্বা বলেছেন, এই আবিষ্কারে নতুন করোনার প্রতিরোধে এক ধাপ অগ্রগতি হলো।

মানুষকে সংক্রমিত করে এমন আরেক ধরনের করোনাভাইরাস ২২৯ই-এর ওপর জীবাণুনাশকটির পরীক্ষা চালিয়েছেন গবেষকরা। নতুন করোনাভাইরাসের সঙ্গে ২২৯ই করোনাভাইরাসের গঠন প্রকৃতি ও জিনগত মিল রয়েছে। ২২৯ই করোনাভাইরাসের কারণে মানুষ সামান্য সর্দি-জ্বরে আক্রান্ত হয়।
পরীক্ষায় দেখা গেছে, কোনো বস্তুর ওপর বর্ণহীন জীবাণুনাশকটি একবার প্রয়োগের পর তিন থেকে চার মাস তার ধারে কাছে ঘেঁষতে পারেনি করোনাভাইরাসের জীবাণু।

এটি কোনো রকেট সায়েন্স নয় বলে জানিয়েছেন গবেষকরা। এক দশক ধরে জীবাণুনাশকের এই প্রযুক্তি ব্যবহৃত হয়ে আসছে। বিভিন্ন সময় হাসপাতাল জীবাণুমুক্ত রাখতে এর ব্যবহার হয়েছে।
চার্লস বলেন, সাধারণ মানুষের অনেক বেশি চলাচল রয়েছে এমন জায়গায় এই জীবাণুনাশক ব্যবহার করা যেতে পারে। গণপরিবহন বা ট্রেন আপনি একবার সাধারণ উপায়ে জীবাণুনাশক করলেন। কিন্তু পরক্ষণেই সেখানেই আরও লোক উঠবে এবং সংক্রমণের আশঙ্কা তৈরি হবে। সে ক্ষেত্রে নতুন জীবাণুনাশক পদ্ধতি ব্যবহার ভালো ফল দেবে।
লকডাউনের পর শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো যখন খুলে দেয়া হবে তার আগে শ্রেণিকক্ষে এ জীবাণুনাশক ব্যবহার করা যেতে পারে বলে জানিয়েছেন অধ্যাপক চার্লস।